স্পোর্টস

বিয়ে করে শাস্তির মুখে সৌম্য সরকার

এখনই সময় :

জাতীয় ক্রিকেট দলের মারকুটে ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকারের বিয়ে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার শেষ নেই। বুধবার রাতে খুলনা ক্লাবে প্রিয়ন্তি দেবনাথ পূজার সাথে সৌম্য সরকার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের আশীর্বাদ অনুষ্ঠানে হরিণের চামড়া ব্যবহারের কারণে কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হতে পারে সৌম্যকে।

সৌম্য সরকার বিয়ের আগে থেকেই তার হবো বউ পূজাকে নিয়ে নানা ধরনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন। সেই তখন থেকেই বিয়ে ঘিরে ছিল নানা বিতর্ক, সমালোচনা। এমনকি বিয়েতে মারামারির ঘটনাও ঘটেছে। বিয়েতে মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে দুই জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসব ঝামেলার মধ্য দিয়ে বিয়ের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলেও বিপদ যেন পিছু ছাড়ছে না সৌম্য ও তার পরিবারের।

এসব থেকেও সবচেয়ে ঝামেলা তৈরি হচ্ছে বিয়ের আশীর্বাদে হরিণের চামড়া ব্যবহার করায় নানা সমালোচনার পাশাপাশি আইনি ঝামেলাতেও পড়তে যাচ্ছেন জাতীয় দলের এই ক্রিকেটার ও তার পরিবার।

হরিণের চামড়া ব্যবহার নিয়ে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী ক্রাইম কন্ট্রোল ইউনিটের পরিচালক এসএম জহির উদ্দিন বলেন, ওই ঘটনার তদন্তে ঢাকা থেকে ইন্সপেক্টর অসীম মল্লিককে সাতক্ষীরায় সৌম্য সরকারের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। তিনি তদন্ত শেষ করে এর প্রতিবেদন অফিসে জমা দিলেই প্রতিবেদন অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হরিণের চামড়া ব্যবহার নিয়ে সৌম্যের বাবা সাতক্ষীরার সাবেক শিক্ষা কর্মকর্তা কিশোরী মোহন সরকার বলেন, এটি আমাদের পারিবারিক ঐতিহ্যের নিদর্শন। চামড়াটি মূলত প্রার্থনার জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি বহু পুরনো। যুগ যুগ ধরে তা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বংশানুক্রমে সেটি পেয়েছি।

প্রসঙ্গত, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনের ধারা ৬ অনুযায়ী, লাইসেন্স ব্যতীত কোনো ব্যক্তির কাছে বন্যপ্রাণী, বন্যপ্রাণীর অংশ পাওয়া গেলে অথবা বন্যপ্রাণী থেকে উৎপন্ন দ্রব্য বিক্রয়, আমদানি-রফতানি করলে তার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ এক বছরের সাজা অথবা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা হতে পারে। একই অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটলে তিন বছরের সাজা অথবা সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা জরিমানা।

Related Articles

Leave a Reply

Check Also

Close
Back to top button
Close