ব্যবসা

শেয়ারবাজারে আসছে রবি

এখনই সময় :

গ্রামীণফোনের পর এবার শেয়ারবাজারে আসতে প্রস্তুতি নিচ্ছে দ্বিতীয় শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর রবি। ঢাকা ও চট্টগ্রামের শেয়ারবাজার থেকে ৫২৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকা উত্তোলনের জন্যে গ্রুপের কাছ থেকে শর্তসাপেক্ষে অনুমোদন পেয়েছে এই অপারেটরটি।

শুক্রবার মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে রবির মূল কোম্পানি আজিয়াটা গ্রুপের বোর্ড মিটিংয়ে রবিকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে নিবন্ধনের জন্যে অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। মালয়েশিয়ার একটি এক্সচেঞ্জে এ বিষয়ক ঘোষণা দেয় তারা।

রবির হেড অব করপোরেট অ্যাফেয়ার্স শাহেদ আলম বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। সেখান থেকে টেলিফোনে তিনি সাংবাদিকদের জানান, করপোরেট ট্যাক্স ১০ শতাংশ কম পাওয়াকে প্রধান শর্ত হিসেবে উল্লেখ করেছেন তারা। বর্তমানে করপোরেট ট্যাক্স ৪৫ শতাংশ। এছাড়া, গত বাজেট থেকে কার্যকর হওয়া মোট রাজস্বের ওপর দুই শতাংশ হারে নূন্যতম ইনকাম ট্যাক্স আরোপ করে সরকার। পুঁজিবাজারে নিবন্ধনের শর্ত হিসেবে এটিও প্রত্যাহার চাইছেন তারা। বিষয়টি নিয়ে তারা সরকারের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

আজিয়াটা গ্রুপের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ১০ টাকা মূল্যে শেয়ার ছাড়বে রবি। এজন্য তাদেরকে ৫২ কোটি ৩৭ লাখ ৩৩ হাজার শেয়ার ছাড়তে হবে, যা তাদের মূল শেয়ারের ৬ দশমিক ৮৩ শতাংশ। ২০২০ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের মধ্যে আইপিও এবং নিবন্ধনের কাজ শেষ করতে চায় তারা। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত রবির মোট কার্যকর গ্রাহক আছে ৪ কোটি ৭৩ লাখ, যা দেশের মোট কার্যকর মোবাইল সংযোগের প্রায় ৩০ শতাংশ।

আজিয়াটা আশা করছে, বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে নিবন্ধিত হওয়ার মধ্য দিয়ে রবির ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য তহবিল সংগ্রহের পাশাপাশি কোম্পানির ভাবমূর্তিতেও ইতিবাচক প্রভাব দেখা যাবে। আর দেশ-বিদেশের বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি রবির পরিচালক ও কর্মীদের জন্যও কোম্পানির শেয়ার মালিক হওয়ার সুযোগ করে দেবে এই আইপিও। রবি ইতোমধ্যে তাদের আইপিরও জন্য আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডকে তাদের ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব দিয়েছে। মালয়েশিয়ার কোম্পানি আজিয়াটা রবির ৬৮.৭ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close