আন্তর্জাতিক

ফের আলোচনায় চীনের সেই গোপন গবেষণাগার

এখনই সময় :

করোনাভাইরাস প্রসঙ্গে চীন সরকার শুরু থেকেই বলে আসছে উহানের একটি ওয়েট মার্কেট থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়েছে। সেই তথ্যকে আমলে নিয়ে দক্ষিণ চীনা প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, ভাইরাসটি উহান সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (ডব্লিউসিডিসি) থেকে ছড়িয়েছে। কারণ এই ল্যাবের পাশেই রয়েছে ওয়েট মার্কেট।

করোনাভাইরাসের উৎস হিসেবে ফের চীনের গোপন এই ল্যাবকে দায়ী করেছেন ভাইরাস বিশেষজ্ঞরা। একটি জার্নালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তারা দাবি করেছেন, উহান শহরের ‘কুখ্যাত’ মাংসের বাজার (ওয়েট মার্কেট) থেকে ওই ল্যাবটি মাত্র ২৮০ মিটার দূরত্বে অবস্থিত।

ভাইরাস বিশেষজ্ঞ বোটাও জিয়াও এবং লেই জিয়াও ‘দ্য পসিবল অরিজিনস অব ২০১৯-এনকভ করোনাভাইরাস’ শিরোনামের গবেষণাপত্রটি রিসার্চ গেটে প্রকাশ করেছেন। প্রবীণ দুই বিশেষজ্ঞের দাবি, গোপন ওই ল্যাবে প্রাণী নিয়ে গবেষণা করা হয়। সম্প্রতি সেখানে ৬০৫টি বাদুড় আনা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে জেএইচ তিয়ান নামের একজন গবেষকের কথা বলা হয়েছে। তিনি বোটাও এবং লেইয়ের পরিচিত। দুজনের দাবি, ল্যাবের ভেতরে তিয়ানের শরীরে একটি বাদুড় প্রস্রাব করে। ওই ঘটনার পর তিনি ২৮ দিন নিজেকে সবকিছু থেকে পৃথক করে রাখেন।

জার্নালে বলা হয়েছে, ‘ভাইরাসটি এই ল্যাব থেকে ছড়াতে পারে বলে আমরা বিশ্বাস করছি। তবে শক্ত প্রমাণ পেতে আরও গবেষণা প্রয়োজন।’

উহানের ওই ওয়েট মার্কেটের ১২ কিলোমিটার দূরে আরেকটি ল্যাব আছে। সেটির কথাও গবেষণায় বলা হয়েছে, ‘এই ল্যাবরেটরি জানিয়েছে ২০০৩ সালে যে সার্স ভাইরাস ছড়িয়েছিল, সেটি চীনের বাদুড় থেকে।’

কোভিড-১৯ ভাইরাসে ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মোট ১৬৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

যে হুবেই প্রদেশ থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে সেখানেই মারা গেছে ১৫৯৬ জন। এখানে আক্রান্তদের মধ্য থেকে সেরে উঠেছেন ৫ হাজার ৬২৩ জন।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close