সারাদেশ

রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে দুই র‌্যাব সদস্য আহত

এখনই সময়  :

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে অবস্থিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে রোহিঙ্গা স্বশস্ত্র গোষ্ঠীর অস্ত্রের ঝনঝনানি দিনদিন বেড়েই চলছে। বিশেষ করে টেকনাফের কয়েকটি রোহিঙ্গা ক্যাম্প এসব রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের করায়ত্ত থেকে বের হতে পারছে না। সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত অভিযান স্বত্বেও স্বশস্ত্র রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের থামানো যাচ্ছে না।

আজ সোমবার টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া মৌচনী রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে। এতে দুই র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরতর জখম হয়েছে। র‌্যাব-১৫, সিপিসি-২ এর একটি টিম রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক কারবারিদের সন্ধানে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে গেলে ঘটনাটি ঘটে।

র‌্যাব-১৫ সূত্রে জানা যায়, সোমবার বিকেলে নয়াপাড়া মৌচনী রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় রোহিঙ্গা মাদক কারবারি ও স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা অতর্কিতে র‌্যাব সদস্যদের ওপর গুলি চালিয়ে ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়। এতে সৈনিক ইমরান ও কর্পোরাল শাহাব উদ্দিন নামে দুই র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়। কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর সিপিসি-২ হোয়াইক্যং ক্যাম্পের ইনচার্জ (এএসপি) শাহ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সোমবার বিকেলে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইয়াবাবিরোধী অভিযানে গেলে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। এতে দুই র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) পাঠানো হয়েছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্প সূত্রে জানা যায়, টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া, মৌচনী, শালবাগান, জাদিমুড়া, লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো রোহিঙ্গা অপরাধীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হচ্ছে। এসব ক্যাম্পগুলোতে ইয়াবা কারবার, সন্ত্রাসী, ডাকাতি, অপহরণ কর্মকাণ্ড হরহামেশা ঘটেই চলছে। বিভিন্ন সময়ে র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি সেখানে অভিযান চালিয়ে রোহিঙ্গা ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। এতে এ পর্যন্ত ৫৪ জন রোহিঙ্গা ডাকাত, সন্ত্রাসী ও ইয়াবা কারবারি নিহত হয়েছে।

নয়াপাড়া মৌচনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এক যুবক বলেন, এখানে বেশ কয়েকটি রোহিঙ্গা স্বশস্ত্র গোষ্ঠী রয়েছে। তারা ক্যাম্প ভিত্তিক ইয়াবা কারবার নিয়ন্ত্রণসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। তাদের কাছে প্রচুর অস্ত্র মজুদ আছে বলে আমাদের ধারণা। সাধারণ রোহিঙ্গারা তাদের ভয়ে মুখ খুলতে পারে না।

ক্যাম্পের ওই যুবক আরো বলেন, সন্ত্রাসীরা যেখানে দিনের আলোতে র‌্যাবের ওপর গুলি চালিয়েছে, সেখানে আমাদের মতো সাধারণ রোহিঙ্গারা খুব আতঙ্কে রয়েছি।

 

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close