রাজনীতি

শিবিরের অতিত হত্যা লীলা

অরিন্দম হালদার। সদস্য, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

কতটা নির্মম শিবিরের অত্যাচারের ইতিহাস…ভুলে গেলে অন্যায়…

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পরে স্বাধীনতা বিরোধী কালো শক্তি জামাত-শিবির, জাতির পিতার সোনার বাংলাকে হত্যা যোজ্ঞের স্থায়ী আবাস ভূমি বানাতে চেয়েছিল। জামাত-শিবিরের সেই হত্যাযোজ্ঞের লীলা নতুন প্রজন্মের জানা উচিৎ…….

১৯৮১ চিট্টগ্রাম কলেজের তবারকে হত্যা করা হয়,মৃতুর আগে তবার পানি খেতে চেয়েছিল,শিবির সন্ত্রাসীরা পানির বদলে তাকে মুত খেতে দেয়।।।

১৯৮৪ সালে চট্টগ্রাম কলেজের শাহাদাতকে জবাই করে হত্যা করে শিবির।
১৯৮৮ সালে সিলেটের মুনির,জুয়েল ও তপনকে হত্যা করে শিবির।।
আবার একই বছরে রাজশাহী মেডিকেলের জামিল আক্তার রতনকে জবাই করে হত্যা করে শিবির।।
১৯৯০ সালে চবির ফারুকুজামান ফারুককে জবাই করে ম্যানহুলের ভিতরে লাশ ফেলে দেই শিবির।।
১৯৯২ সালে জাসদ নেতা মুকিমকে কুপিয়ে হত্যা করে।।
১৯৯৩ সালে তপন সহ ৫ জনকে হত্যা করে।।
১৯৯৬ সালে রাবিতে আমানউল্লাহ আমানকে কুপিয়ে হত্যা করে শিবির।।
১৯৯৭ সালে চট্টগ্রাম পলিটেকনিকের ভিপি জমিরকে কুপিয়ে হত্যা করে ।।
১৯৯৮ সালে সঞ্জয় তলাপত্রকে কুপিয়ে হত্যা করে।।
২০০০ সালে চট্টগ্রামের বহদ্দারহাট প্রকাশ্য ৮ ছাত্রলীগের নেতাকে হত্যা করে রাস্তায় নেমে উল্লাস করেছিল শিবিরেরা।।
২০০১ সালে রাবির অধ্যাপক সমত কুমার সাহাকে জবাই করে হত্যা করা হয়।।
২০০৪ সালে অধ্যাপক ইউসুপ স্যারকে জবাই করে হত্যা করে।। এবং বাবুগঞ্জের শামীমকে কুপিয়ে হত্যা করে।শিবির সন্তানরা।।।
২০০৪ সালে স্ত্রীর সামনে হত্যা করা হয় হুমায়ুন আজাদকে।।
২০০৪ সালে স্ত্রীর সামনে হত্যা করা হয় হুমায়ন আজাদ কে।
২০০৬ সালে রাবির অধ্যাপক আবু তাহের ও হাসান আজিজুল হককে গলা কেটে হত্যা করা হয়।
২০১৩ সালে বুয়েটের মেধাবী ছাত্র দ্বীপ ও সিলেটের জগতজ্যোতিকে ও কানাইঘাটের নজরুলকে কুপিয়ে হত্যা করে শিবিরের হায়েনারা।
২০১৫ সালে নিলয়,অভিজিৎ, অনন্তকে জবাই করে হত্যা করা হয়।

এ তালিকা কত লম্বা ও জঘন্য নিশ্চয় আপনারা তা আচঁ করতে পারছেন।উপরে নিহত সকলের পরিবার আজও বিভীষিকাময় স্মৃতি নিয়ে আছে, তাদেরও মা সেদিন হাউমাউ করে কেঁদেছিল আর খুনী সেদিন আনন্দচিত্তে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরছিল। সেদিনকার আর আজকের তফাত হচ্ছে বিচার ব্যবস্থার,আজ হত্যা করে কয়েক ঘন্টার মধ্যে অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা যায়। এখন যে খুন গুলোও হচ্ছে তাও শিবিরের সম্পৃক্ততাই, কারন অধিকাংশ খুনি শিবিরের অনুপ্রবেশকারী।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close