জাতীয়সারাদেশ

মাদারীপুরে জমি নিয়ে বিরোধ গুলিতে একজন নিহত

কালকিনি মাদারীপুর :
মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার ডাসারে জমি নিয়ে বিরোধে প্রতিপক্ষের গুলিতে মোঃ সোহাগ তালুকদার-(৩২) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। নিহত সোহাগ তালুকদার উপজেলার বালিগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম বোতলা গ্রামের সামচুল হক তালুকদারের ছেলে। শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র উদ্ধার করে এবং ঘাতককে আটক করে। এদিকে এ হত্যার ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে ওই ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মতিন মোল্লা, ঘাতক কামালউদ্দিন আহাদসহ পাঁচ জনকে আসামী করে ডাসার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও মামলা সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বালিগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম বোতলা গ্রামের নিহত সোহাগ তালুকদারের পিতা সামচুল হক তালুকদারের সঙ্গে একই গ্রামের আব্দুল হাই মোল্লার ছেলে কামালউদ্দিন আহাদের দীর্ঘদিন যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। ওই বিরোধপূর্ন জমিতে ভোরে ধান রোপন করতে যান নিহত সোহাগ তালুকদার। এসময় তাকে ধান রোপন করতে বাঁধা প্রদান করেন কামালউদ্দিন আহাদ। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে কামালউদ্দিন আহাদের উপর হামলার চেষ্টা চালায় সোহাগ তালুকদার ও তার লোকজন।
পরে কামালউদ্দিন আহাদ তার লাইসেন্সকৃত বন্দুক দিয়ে গুলি করেন সোহাগ তালুকদারকে। আহত অবস্থায় সোহাগ তালুকদারকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে রওনা হয়ে মাদারীপুরের পাচ্চর নামকস্থানে পৌছালে মারা যায়।
পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেন। খবর পেয়ে উপজেলার থানা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র উদ্ধার করে এবং ঘাতককে আটক করে।
এ হত্যার ঘটনায় নিহতের বাবা সামচুল হক তালুকদার বাদী হয়ে ওই ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আ:মতিন মোল্লা, ঘাতক কামালউদ্দিন আহাদসহ পাঁচ জনকে আসামী করে ডাসার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

অভিযুক্ত কামালউদ্দিন আহাদের মেয়ে তাপসি বলেন, প্রথমে আমার বাবার উপরে হামলা চালানোর চেষ্টা করে নিহত সোহাগ তালুকদার ও তার লোকজন। পরে আমার বাবা তার জীবন রক্ষার্থে তার লাইসেন্স করা বন্দুক দিয়ে গুলি করে।

নিহতের বাবা ও মামলার বাদি সামচুল হক তালুকদার বলেন, আমার ছেলেকে গুলি করার জন্য হুকুমদেন সাবেক চেয়ারম্যান মতিন মোল্লা পরে আহাদ আমার ছেলেকে গুলি করে। তাই আমি তাদের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেছি।ছেলে হত্যার বিচার চাই।

ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ হাসানুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে বন্দুকসহ আসামীকে আটক করেছি। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে।

আরও সংবাদ

Back to top button