জাতীয়

অশ্লীল ভিডিওতে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু মামলা

বদরগঞ্জে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যার পর অশ্লীল ভিডিও ফাঁসের ঘটনায় মামলা

 

রংপুরের বদরগঞ্জে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার প্রায় দুই মাস পর অশ্লীল ভিডিও ফাঁসের ঘটনায় হাফিজুর রহমান (২৮) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।(১০ মার্চ) বুধবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করে বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান বলেন, মঙ্গলবার রাতে বদরগঞ্জ থানার (এসআই) অলিউর রহমান বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন। প্রাথমিক তদন্তে পুরো ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

 

হাফিজুর রহমানকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়ে আসা যাওয়ার পথে ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের কাঁচাবাড়ী বানিয়াপাড়ার ইউনুস মেম্বারের ছেলে কনফেকশনারী ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান (২৮)। তাকে নানাভাবে প্রলোভন দিয়ে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করা হয়। মেয়েটির পারিবারিক দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে হাফিজুর তার এক বন্ধুকে দিয়ে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের বেশ কিছু অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে রাখেন।

 

পরে ওই ভিডিও ফাঁস করার হুমকি দিয়ে আবারো ব্লাকমেইল করে হাফিজুর। এ ঘটনায় গত ৫ জানুয়ারি কাঁচাবাড়ি হিন্দুপাড়ায়র নিজ বাড়িতে কীটনাশক পান করে আত্মহননের পথ বেছে নেয় ছাত্রীটি। তড়িঘড়ি করে লাশের ময়না তদন্ত শেষে স্থানীয় শ্মশানঘাটে দাহ করা হয় তার মরদেহ। ওই সময় তার পরিবার ও এলাকার মানুষ জানতে পারেনি আত্মহত্যার আসল কাহিনী। এরমধ্যে ওই ছাত্রীর সঙ্গে হাফিজুর রহমানের ৪ মিনিট ২৩ সেকেন্ডের একটি অশ্লীল ভিডিও ফাঁস হলে এলাকায় আত্মহত্যার রহস্য নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

 

বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসে থানা পুলিশ।প্রভাবশালী হাফিজুর রহমানের হুমকি-ধমকিতে ওই ছাত্রীর অসহায় মা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নেয়। পরে তাকে খুঁজে বের করে পুলিশ। তাকে দিয়ে মামলা করতে চাইলে তিনি তাতে রাজী না হওয়ায় গত মঙ্গলবার রাতে সীমা আত্মহত্যার প্ররোচনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেন। এতে হাফিজুর রহমানকে প্রধান আসামী করাসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজনের বিরুদ্ধে পুলিশ মামলা করা হয়। কিন্তু একই এলাকার ওই ছাত্রীর প্রতিবেশী গোপন ক্যামেরায় ভিডিও ধারণকারী কালিপদ মাস্টারের ছেলে বিপুল চন্দ্রকে আসামী করা হয়নি বলে স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

 

আরও সংবাদ

Back to top button