জাতীয়

নবীগঞ্জে ককটেল বিষ্ফোরনের ঘটনায় মামলা

সাবেক এমপি সুজাত আলীকে আসামী কা হয়েছে


 

 

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মোঃ হাবিবুর রহমান চৌধুরী শামীম ||

 

নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরীর নৌকার সমর্থনে পথসভা শেষে ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনায় সাবেক এমপি শেখ সুজাত মিয়াকে প্রধান আসামী করে আরো ১৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৫০জন আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ রাতেই মকবুল হোসেন চৌধুরী (৩০) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ ও বিভিন্ন সুত্রে জানাযায়, আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্টিতব্য নবীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী  গোলাম  রসুল রাহেল চৌধুরীর নৌকার সমর্থনে গত রবিবার বিকেলে শহরের নতুন বাজার এলাকায় পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ যুব মহিলালীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক এমপি অধ্যাপিকা  অপু উকিল। এতে প্রায় সহশ্রাধিক লোকের সমাগম ঘটে। বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি সভা স্থল ত্যাগ করার সাথে সাথেই নতুন বাজার গোল চত্বর মোড়ে বিকট আওয়াজে দুটি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। এতে সাধারন মানুষ আতংকে দিকবিদিক ছুটাছুটি করেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। এতে ঘটনাস্থলে শত শত জনতা দিকবিদিক ছুটাছুটি করে। শহরে সাধারন মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। ককটেল বিস্ফোরনে ৩জন পথচারী আহত হয়। আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়। আহতরা হলেন, পৌর এলাকার সালামতপুর গ্রামের ছমির মিয়ার ছেলে নজির মিয়া (৩৬), ভানুদেভ গ্রামের ফিরোজ মিয়ার ছেলে শিপন আহমদ (২২), প্রজাতপুর গ্রামের হুসেইন মিয়ার ছেলে তারেক আহমদ (২৪)। এ ঘটনায় রাতেই নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়ছল তালুকদার বাদী হয়ে সাবেক এমপি শেখ সুজাত মিয়াকে প্রধান আসামী করে আরো ১৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৫০জন আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ আজিজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করেছে। অপর আসামীদের গ্রেফতার করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। সুষ্ট নির্বাচন সম্পনের জন্য পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। নির্বাচনে কোন অপশক্তি প্রভাবিত করতে পারবেনা।

আরও সংবাদ

Back to top button