জাতীয়

হিন্দুদের মুর্তিতে কোনো বাধা নেই মুসলমানের মুর্তি হতে পারে না — তারেক খান

 

এখনই সময় :  এ দেশে হিন্দু বৌদ্ধ বা অন্য ধর্মের মূর্তি থাকবে, সেগুলোতে পূজাও হবে। এটা পূর্ব হতেই ছিল আর হয়ে আসছে।

কিন্তু মুসলমানের কোন মূর্তি থাকতে পারে না। তাকে পূজাও করা যাবে না। পূজা করতে বাধ্যও করা যাবে না। এমনকি ফুল দিয়ে মূর্তিকে শ্রদ্ধা জানানোতেও নিষেধ আছে।

যদি হিন্দু, বৌধ্য বা অন্য ধর্মের মানুষ মূর্তি বানায় তাদের পূজা আর্চোনার জন্য সেটাতে কেউ বাঁধা দেয় নাই, ভবিষ্যতেও বাঁধা দেবে না।

কিন্তু মুসলিমদের জন্যেও মূর্তি জায়েজ এই কথাটি বলার বা প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ নাই। তাঁদের উপর মূর্তি চাপিয়ে দেওয়াও বৈধ নয়।

 

এখানে শত শত বছর ধরে মূর্তি বানানো হচ্ছে বিভিন্ন ধর্মের পক্ষ হতে, সেগুলোতে পূজাও চলছে। সামনেও সেটা চলবে।

কিন্তু মুসলমানদের জন্যেও মূর্তির বৈধতা দেয়ার যাবে না। কোন মুসলমান সেটা করতে চাইলে তাকে মুসলমান আইডেন্টিটি ত্যাগ করেই সেটা করতে পারে।

এটা কোন ভাবেই বলা যাবে না, ৯০% মুসলমানের দেশে অন্য ধর্মের চর্চা হবে না। অন্য ধর্মের মূর্তি বানানো যাবে না।

কিন্তু এটা বলা যাবে মুসলমানদের উপর মূর্তি চাপিয়ে দেওয়া যাবে না।

আর কুরআন সুন্নাহ অনুযায়ী ভাস্কর্য আর মূর্তিকে আলাদা করে দেখার সুযোগ নাই। তবে ভাস্কর্য যদি প্রাণীর আবয়ব না পায় তাহলে সেটাতে সমস্যা থাকে না।

 

যারা বলছে মূর্তি ভাঙ্গা যাবে,  ভাস্কর্য ভাঙ্গা যাবে না। তারা মূলত বিভিন্ন ধর্মের মূর্তিগুলোকে যা রারা পূজা আর্চনায় ব্যবহার করে সেগুলোকে হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছে।  একটা সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

  1. তারেক খান

যুব  অধিকার পরিষদ

আরও সংবাদ

Back to top button