জাতীয়

২৪ ঘণ্টায় গেল ৪২ প্রাণ, শনাক্ত ২৭৩৫

এখনই সময় :

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আরো ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৩৫ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৯৩০ জনের। আর সব মিলিয়ে শনাক্ত হয়েছেন ৬৮ হাজার ৫০৪ জন।

আজ সোমবার (৮ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে সরকারি বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিন প্রকাশে অংশ নেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ডা. নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে দেশে আরো ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁরা ৩৩ জন পুরুষ এবং ৯ জন নারী। এঁদের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে চারজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে দুইজন এবং ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে দুইজন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৯৩০ জনের।

জানানো হয়, নতুন যে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে তাঁরা ঢাকা বিভাগের ২৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের আটজন, রাজশাহী বিভাগের একজন, খুলনা বিভাগের দুইজন, বরিশাল বিভাগের দুইজন, সিলেট বিভাগের একজন, রংপুর বিভাগের একজন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের দুইজন।

এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৬৫৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৪ হাজার ৫৬০ জন।

ডা. নাসিমা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৯৬১টি। পরীক্ষা হয়েছে পূর্বের নমুনাসহ ১২ হাজার ৯৪৪টি। এর মধ্যে করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে দুই হাজার ৭৩৫ জনকে। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৬৮ হাজার ৫০৪ জন।আর এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে চার লাখ ১০ হাজার ৯৩১টি।

আইসোলেশন প্রসঙ্গে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে আরো ২৯৭ জনকে। একইসময় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৪৪ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে গেছেন ১১ হাজার ৮৭১ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন চার হাজার ৩১৯ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন সাত হাজার ৫৫২ জন।

বুলেটিনে জানানো হয়, ঢাকাসহ সারা দেশে মোট আইসোলেশন সংখ্যা ১৩ হাজার ২৮৪টি। বর্তমানে ঢাকা মহানগরীতে সাত হাজার ২৫০টি এবং ঢাকা সিটির বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ছয় হাজার ৩৪টিতে।

কোয়ারেন্টিন প্রসঙ্গেও তথ্য দেওয়া হয় বুলেটিনে। বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় হোম এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে এসেছেন দুই হাজার ২২৮ জন। একইসময় কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন এক হাজার ৮৫২ জন। আর এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মোট তিন লাখ তিন হাজার ৪২৫ জন। আর এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন দুই লাখ ৪৭ হাজার ৩৫৩ জন। ছাড়ের পর বর্তমানে হোম এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৬ হাজার ৭২ জন।

সারা দেশের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য প্রস্তুত ৬২৯টি প্রতিষ্ঠান। এর মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে ৩১ হাজার ৯৯১ জনকে সেবা প্রদান যায় বলে জানানো হয় বুলেটিনে।

বুলেটিনে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য বাতায়ন এবং আইইডিসিআর’র হটলাইনে কল এসেছে এক লাখ ৭১ হাজার ১৭টি। এসব কলে সবাইকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে এ পর্যন্ত হটলাইনে এক কোটি ১২ লাখ আট হাজার ১১৭ জনকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসকের সংখ্যা বেড়েছে আরো পাঁচজন। এ নিয়ে এখন মোট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসকের সংখ্যা দাঁড়াল ১৬ হাজার ২৯১ জনে। এ ছাড়া বর্তমানে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে হটলাইনে চার হাজার ২১৭ জন চিকিৎসক স্বাস্থ্য পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানানো হয় বুলেটিনে।

বুলেটিনের শুরুতেই জানানো হয়, আজ সোমবার (৮ জুন) সকালে বাংলাদেশ সরকারের আমন্ত্রণে চীনের ১০ সদস্যের একটি বিশেষ প্রতিনিধি দল এসেছে। দলটি ১৪ দিন এই দেশে অবস্থান করে দেশের বিভিন্ন সামরিক-বেসামরিক কভিড-১৯ হাসপাতাল, কোয়ারেন্টিন সেন্টার, ল্যাবরেটরি পরিদর্শন করবে। সেখানে ব্যবস্থাপনাসহ সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে অভিজ্ঞতা ও মতবিনিময় করবেন দলের সদস্যরা। এ ছাড়া অনলাইনের মাধ্যমে সারা দেশের হাসপাতাল ও স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত হবেন তাঁরা।

আরও সংবাদ

Back to top button