টেক

দেশব্যাপী ইয়াং বাংলার স্বেচ্ছাসেবীদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে অনলাইন সেমিনার

এখনই সময় :

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কারণে দেশব্যাপী নিজেদের তরুণ স্বেচ্ছাসেবীদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করার পদক্ষেপ নিয়েছে সেন্টার অব রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) প্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলা। কেননা এসব স্বেচ্ছাসেবী মানবতার সেবায় এখন বাইরে কাজ করে যাচ্ছে, যেখানে এখন সবাইকে ঘরে থাকা দরকার।

ইয়াং বাংলার এসব স্বেচ্ছাসেবীরা সিআরআই মাধ্যমে নির্বাচিত হন।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমাতে দেশব্যাপী যখন নানা বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। স্বেচ্ছাসেবীদের কার্যক্রমের মধ্যে বর্তমানে রয়েছে গরীব ও দিন মজুর মানুষদের খাবার সরবরাহ করে দেওয়া। যারা এখন কঠিন সময় পার করছেন। কেননা প্রাণঘাতী এই করোনার প্রাদুর্ভাব কমাতে দেশব্যাপী প্রায় সকল ধরনের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

ইয়াং বাংলার স্বেচ্ছাসেবীরা মাইকিং করে ও দোকানের সামনে এবং অন্যান্য যায়গায় সার্কেল দিয়ে সামাজিক দূরত্ব বজার রাখার জন্য ক্যাম্পেইন করছে।

যেহেতু এসব স্বেচ্ছাসেবী বাইরে কাজ করছে তাদের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। এজন্য সিআরআই তাদের ২০০ কমিউনিটির লিডার ও অন্যান্য সুস্থ স্বেচ্ছাসেবীদের মাঝে গত সপ্তাহে তিনটির বেশি ‘অনলাইন সেমিনারের’ আয়োজন করে। এসব সেমিনারে ‘করোনার সময়ে স্বেচ্ছাসেবক ও সুরক্ষা’ সম্পর্কিত দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়।

এতে প্রখ্যাত প্রফেসর ডঃ মামুন আল আহতাব (স্বপ্নিল), চেয়ারম্যান, লিভার ডিপার্টমেন্ট, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি (বিএসএমএমইউ) তরুণদের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা ও প্রশ্নের জবাব দেন।

তিনি বলেন, যখন বিশ্বব্যাপী এই ভাইরাস মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে, আপনারা মানবতার সেবায় কাজ করছেন, সেরা কাজ করছেন।

তবে তিনি বলেন, এসময় বাইরে কাজ করে বাড়িতে আসার পর আপনাদের জুতা বাইরে রাখবেন, সম্ভব হলে। অথবা ঘরের ভিতরে রাখার আগে ভালভাবে পরিষ্কার করতে হবে।

এছাড়া তিনি বলেন, বাইরে কাজ করার সময় একটি বক্সে করে ঘড়ি, ওয়ালেট ও অন্যান্য জিনিষ রাখতে পারেন। সেই সঙ্গে মোবাইল বাইরে থেকে এসে মোবাইল পরিষ্কারের কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, প্রত্যেকের সার্জিকাল মাস্ক ব্যবহার করার দরকার নেই। আপনারা দুই তিন স্তরে মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া তিনি ডি হাইড্রেশন ও হিট স্ট্রকের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক করেন।

সেই সঙ্গে ডঃ মামুন আল আহতাব করোনা নিয়ে ভুয়া নিউজের ব্যাপারে সজাগ থাকতে বলেন। তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়া ভুয়া খবর ও গুজব ঠেকাতে একটি অ্যাপ তৈরি করেছে।

আমি অবাক হয়ে যাই যখন দেখি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার লোগো ব্যবহার করে মানুষ ভুয়া খবর ছড়াচ্ছে। কেন মানুষজন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অফিশিয়াল সাইটে ঢুকে না এসব চেক করে না।

বাংলাদেশে এই মহামারীর পরিস্থিতি সম্পর্কে বলেন, যখন পুরো বিশ্ব এই ভাইরাসে ভয়ে, বিশ্ব জুড়ে বিভিন্ন শহর লকডাউন করা হয়েছে, তেমনি বাংলাদেশেও এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমাতে কম পদক্ষেপ নেয়নি। এছাড়া ইয়াং বাংলার প্রথম অনলাইন সেমিনারে ‘ঘরে থাকুন’ বার্তার উপর জোর দেয় এবং সমাজের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে আইসিটি সরঞ্জাম ব্যবহারের আলোকপাত করে।

সেই সঙ্গে ইয়াং বাংলার দ্বিতীয় অনলাইন সেমিনারে পরামর্শ ও বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বারডেম হাসপাতালের ফিজিশিয়ান ডঃ মো. আশরাফ উদ্দিন আহমেদ, মো. জাহিদুল হাসান, ক্লিনিক্যাল ফার্মাসিস্ট অব স্কয়ার হাসপাতাল, মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, ন্যাশনাল টেকনিক্যাল এডভাইজার-ওয়ান হেলথ ট্রেনিং এন্ড আউটরিস, ইসিটিএডি-এফএও।

 

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close